ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে যেসব পুষ্টি উপাদানের অভাবে

সুস্থতার জন্য দৈনন্দিন ৮ ঘণ্টার ঘুম ভীষণ জরুরি। ইনসোমনিয়া বা অনিদ্রার সমস্যায় ভোগেন অনেকেই। প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদানের অভাবে প্রকট আকার ধারণ করতে পারে অনিদ্রার সমস্যা। বিভিন্ন খাবার থেকে এসব পুষ্টি উপাদান কিন্তু পেতে পারেন সহজেই। জেনে নিন কোন কোন উপাদানের ঘাটতির কারণে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটতে পারে।
২০১৪ সালে প্রকাশিত এক গবেষণা অনুযায়ী; ভিটামিন সি কেবল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেই সাহায্য করে না, নিরবচ্ছিন্ন ঘুমের কারণও এটি। কমলা, লেবু, ব্রকোলি, সবুজ শাকসবজি থেকে পেতে পারেন পর্যাপ্ত ভিটামিন সি।
আয়রনের অভাবে শরীরের অক্সিজেন সরবরাহ বাধাপ্রাপ্ত হয়, ফলে সমস্যা দেখা দেয় ঘুমের। পালং শাক, লাল শাক, বাদাম, গরুর কলিজা, মাংসে মিলবে আয়রন।
ঘুম আসার জন্য শরীরের যে হরমোন কাজ করে, সেটির সরবরাহ বাড়ায় ম্যাগনেসিয়াম। ফলে ম্যাগনেসিয়ামের ঘাটতি ঘুম না আসার অন্যতম কারণ। সবুজ শাকসবজি, মিষ্টি কুমড়া, তিল ম্যাগনেসিয়ামের অন্যতম উৎস।
শরীরের নার্ভ ও কোষ সুস্থ রাখে ভিটামিন বি১২। এটি দেহে এনার্জির জোগান দেয়। ফলে কর্মক্ষমতা ও ঘুমের সামঞ্জস্য থাকে।
ট্রাইপটোফেন এক ধরনের অ্যামিনো অ্যাসিড যার অভাবে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটতে পারে। ডিম, মুরগি ও মিষ্টি আলু থেকে পাবেন এই উপাদান।
শরীরে ভিটামিন ডি কম থাকলে অনিদ্রার সমস্যা দেখা দিতে পারে। সূর্যালোক থেকে পাওয়া যায় ভিটামিন ডি। এছাড়া বিভিন্ন খাবারেও মিলবে এই ভিটামিন।
দ্য জার্নাল অব স্লিপ রিসার্চ এ প্রকাশিত গবেষণা অনুযায়ী, ক্যালসিয়ামের অভাব ঘুম না আসার জন্য দায়ী। দুধজাতীয় খাবার ক্যালসিয়ামের অন্যতম উৎস।
ওমেগা থ্রি এক ধরনের স্বাস্থ্যকর ফ্যাট যা মস্তিষ্ক ও হৃদযন্ত্র ভালো রাখে। ফলে ঘুম ভালো হয়। সামুদ্রিক মাছে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায় উপাদানটি। তথ্য- রিডার্স ডাইজেস্ট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *